দ্যা জোকার : প্রিন্স অফ ক্যাওস

কমিক বুক ভিলেনের কথা যখন বলতে যাই তখনই থানোস, ম্যাগ্নেটো, গ্যালাক্টাসের মত ভয়ংকর ভিলেনের নামের সাথে সাথে জোকারের নামটাও উচ্চারিত হবে৷ বলা যায়, সবচেয়ে পপুলার কমিকবুক ভিলেন কে? এই প্রশ্নের উত্তরে জোকারের নামটাই চলে আসবে সবার আগে। সেটা নোলান সাহেবের ডার্ক নাইটের জন্যই হোক কিংবা জোকারের ব্যক্তিত্বের জন্য, জনপ্রিয়তার দিক থেকে জোকারকে ছাড়ানো দুষ্কর। একদম কমিক বুক আঁতেল থেকে শুরু করে ব্যাটম্যানের কয়েকটা মুভি দেখা মানুষ পর্যন্ত সবাই জোকারকে পছন্দ করে। কিন্তু জোকার কি শুধু একজন পপুলার ভিলেন? না! সে শুধু পপুলার না। জোকারকে বলা যায় সর্বকালের সেরা ভিলেন, গ্রেটেস্ট ভিলেন অফ অল টাইম!

“গত কয়েক দশক ধরে জোকার

ডিসি ইউনিভার্সে  যে একচেটিয়া রাজত্ব করছে,

তার পুরো কৃতিত্বই দেয়া যায় জোকারকে

যেভাবে লেখা হয়েছে তার উপর”

গত কয়েক দশক ধরে জোকার ডিসি ইউনিভার্সে যে একচেটিয়া রাজত্ব করছে, তার পুরো কৃতিত্বই দেয়া যায় জোকারকে যেভাবে লেখা হয়েছে তার উপর। তার চারিত্রিক বৈশিষ্ট্য কিংবা তার কাজের জন্য সে পরিণত হয়েছে আমাদের কাছে একজন কাল্ট ফিগারে। কিন্তু জোকারের কোন কোয়ালিটি জোকারকে এত সেরা করেছে? আসুন তা দেখা যাক।

জোকার কেন গ্রেট সেটা বলার আগে জেনে নেই ‘গ্রেট ভিলেন’ বলতে আমরা কি বুঝি। গ্রেটেস্ট ভিলেন সে না যে অন্য সব ভিলেনদের কাল্পনিক কোনো ব্যাটেলে হারায়। তার প্রয়োজন নেই ভারী ভারী গ্যাজেট কিংবা কোনো সুপারপাওয়ার দিয়ে তার মূল শত্রু বা অন্য কারো সাথে যুদ্ধ করার, কিংবা দরকার হয় না পুরো বিশ্বকে শাসন করার জন্য বস্তা বস্তা প্ল্যান বানানোর। এই বৈশিষ্ট্যগুলো তখনই জরুরি যখন কিনা আপনি গ্রেটেস্ট ভিলেন হিসেবে সবচেয়ে শক্তিশালী কাউকে বুঝে থাকেন- থানোস কিংবা অ্যাপোক্যালিপ্সের মত কেউ, যে কিনা তুড়ি মেরে উড়িয়ে দিতে পারে পুরো বিশ্ব!

 

“গ্রেট ভিলেনের ক্ষেত্রে আমরা দেখি চরিত্রের কোয়ালিটিকে

এবং এ জায়গাটাতে জোকারই সেরা”

 

কিন্তু আমাদের জোকার মহাশয়ের ক্ষেত্রে এই জিনিসটা খাটে না৷ গ্রেট ভিলেনের ক্ষেত্রে আমরা দেখি চরিত্রের কোয়ালিটিকে এবং এ জায়গাটাতে জোকারই সেরা। আমরা জোকারকে একজন ভিলেন হিসেবে পছন্দ করি কারণ সে ব্যাটম্যানকে নতুন নতুন উপায়ে ফাঁদে ফেলে, আমরা দেখি সে ব্যাটম্যানের স্নায়ুর উপর কি পরিমাণ চাপ দিতে পারে যা তাকে তার অাদর্শ থেকে সরে আসতে বাধ্য করে। জোকারের এই ধরনের কাজকর্ম আমাদের ভালো লাগে কারণ তা আমাদের উপহার দেয় একটা এক্সাইটিং গল্পের৷

জোকারের অ্যাপিয়ারেন্স জোকারকে ভীতিকর হিসেবে পোট্রেট করতে একটা গুরুত্বপূর্ন ভূমিকা রাখে। ক্লাউন বা সঙ জিনিসটা মূলত আমাদের বিনোদনের জন্য হলেও, অনেকের মধ্যেই ক্লাউনভীতি খুব কঠোরভাবে বিদ্যমান। এবং এটাই জোকারকে দেয় একটা এডভান্টেজ। একটা হ্যাপি, কমেডিক, নিষ্পাপ ক্লাউনের সাইকোপ্যাথিক কিলারে পরিণত হওয়ার ব্যাপারটা জোকারকে আমাদের কাছে বানিয়েছে গা শির শির করানো একটা চরিত্রে। জোকারের এই বেশভূষা এত আইকনিক হয়ে গিয়েছিল যে পরবর্তীতে আরো বিভিন্ন পপ কালচারে ভীতিকর চরিত্রের প্রতিমূর্তি হিসেবে ক্লাউনকে ব্যবহার করা শুরু হয়৷ স্টিফেন কিং এর “আইটি” উপন্যাসের পেনিওয়াইজ এর একটা উদাহরণ৷ কিন্তু এই চরিত্রগুলোও জোকারের চরিত্রকে ছাপিয়ে যেতে পারে নি৷ যখনই আমরা কোনো ক্লাউনকে শনাক্ত করি, অটোম্যাটিকালি আমাদের ব্রেইনে জোকারের ইমেজ চলে আসে৷ ‘হ্যাপি গো লাকি’ একটা ক্লাউনের এই সাইকোপ্যাথ আচরণই একে অন্যান্য ভিলেনিয়াস চরিত্র থেকে আলাদা করেছে।

জোকারের এই অ্যাপিয়ারেন্স কি শুধুই একটা প্লেফুল টুইস্টিং ইমেজ তৈরি করার জন্যই? না এই অ্যাপিয়ারেন্স, জোকার এবং তার অার্চ এনিমি ব্যাটম্যানের যে বৈপরীত্য তাও প্রকাশ করে। একদম শুরু থেকে এখন অব্দী ব্যাটম্যান আর জোকার একে অন্যের বিপরীত, একে অন্যের প্রধান শত্রু। জোকারের বেশভূষা কালারফুল, কিন্তু সে ইভিল। অপরদিকে ব্যাটম্যানের এপিয়ারেন্স ডার্ক কিন্তু সে ভাল।

যখন কাউকে বলা হয় এক কথায় জোকার কেমন বলতে, তখন প্রায় সবারই একটা উত্তর আসে- “ক্রেজি বা পাগল”। জোকারকে পাগল বলতে কারোই তেমন বাঁধে না। বলবে নাই বা কেন? তার পোশাক ক্লাউনদের মত, ব্যাটম্যানকে নিয়ে অবসেসড, অধিকাংশ সময় সে কাটায় সুপারভিলেনদের প্রিজন আর্কহাম এসাইলামে। যেদিক থেকেই চিন্তা করি এই লোকটাকে কোনোভাবেই সুস্থ মস্তিষ্কের বলা যায় না।কিন্তু আসলেই কি জোকার ‘ক্রেজি’? নাকি সে ওভাবে নিজেকে সবার সামনে প্রেজেন্ট করতে চায়? জোকারকে পাগল হিসেবে লেবেল দিয়ে দেয়া অনেক সহজ৷ পাগল হলেও তার কাজ জাস্টিফাই করা সহজ হয়৷ সে তার কাজের জন্য দায়ী থাকে না কারণ সে তো পাগল! সুস্থ মস্তিষ্কের কেউ তো আর এসব করবে না!

কিন্তু আসল ঘটনাটা কি তাই? নাকি জোকার তার সব কর্মকাণ্ড সজ্ঞানে করছে? সে যেভাবে ড্রেস-আপ করে, কথা বলে, কাজ করে সবকিছুই করে তার নিজের ইচ্ছায়, নিজ বুদ্ধিতে৷ সে এভাবে আচরণ করতে পছন্দ করে কারণ এভাবে আমরা সবাই আচরণ করি না। তার কাছে জীবনের মূল্য অনেক ক্ষুদ্র। তাই ভয়ংকর কোনো ঝুঁকি নিতেও সে রাজি।

“জোকারের আচরণ তাকে গ্রেট বানায় না,

কিন্তু তার চরিত্রের যে অস্পষ্টতা,

তাই তাকে একজন অসাধারণ ভিলেনে পরিণত করে।”

সে নিজেকে অন্যদের কাছে ক্রেজি বা পাগল হিসেবে উপস্থাপন করতে চায়, কারণ এই কাজটা তাকে তার নিজস্ব স্বাধীনতার একটা আত্মতুষ্টি দেয়৷ এই লেবেল তাকে যা খুশি তা করার স্বাধীনতা দেয় এবং আমরা খুব সহজেই জোকারকে মানসিক বিকারগ্রস্থদের তালিকায় ফেলে দেই। কারণ এটা করা আমাদের জন্য সহজ। অথচ আমরা চিন্তা করি না, এই যে এতসব জটিল প্ল্যান যে সে বানাচ্ছে, তার কতটুকুই বা একজন মানসিক বিকারগ্রস্থের পক্ষে করা সম্ভব? জোকারের আচরণ তাকে গ্রেট বানায় না, কিন্তু তার চরিত্রের যে অস্পষ্টতা, তাই তাকে একজন অসাধারণ ভিলেনে পরিণত করে।

জোকারের ক্ষমতার কথায় যদি আসি, তাহলে আমরা দেখবো তার কোনো অতিরিক্ত সুপারপাওয়ার নেই। ডার্কসেইড, থানোস কিংবা গ্যালাক্টাসের মত সুপারভিলেনদের সাথে যদি আমরা জোকারকে ফাইট করতে নামিয়ে দেই, তাহলে জোকারের এই সম্মুখযুদ্ধে জিতে ফিরে আসার সম্ভাবনা ১০% এর ও কম। কিন্তু তাতে কিছুই যায় আসে না। কোনো অতিরিক্ত সুপারপাওয়ারের অধিকারী না হয়েও পুরো গথাম শহরে ত্রাস সৃষ্টিকারী ভিলেন এই জোকার। গথামের শান্তির ঘুম ধ্বংস করতে আরো বহু ভিলেন বিভিন্ন সময় এসেছে, কিন্তু কতজন জোকারের মত স্থায়ী ক্ষতি করতে পেরেছে? পেংগুইন, টু ফেস, পয়জন আইভি, সলোমন কেউই ব্যাটম্যানের এমন কোনো ক্ষতি করতে পারে নি যা করেছে জোকার।
যখনই জোকার উপস্থিত হয়েছে গথামে, তখনই ঘটেছে কোনো না কোনো ভয়াবহ ঘটনা। জেসন টডকে খুন করতে চাওয়া, বারবারা গর্ডনের পা হারিয়ে ফেলা কিংবা জিম গর্ডনের স্ত্রীকে মেরে ফেলা- জোকার যখনই ব্যাটম্যানকে আঘাত করতে চেয়েছে, তাতেই তার সফলতা ছিল।
কমিকবুকে স্থায়ী পরিবর্তন করার ক্ষমতা খুব কম ভিলেনেরই থাকে। জোকারের এই ক্ষমতা প্রমাণ করে ডিসি ইউনিভার্সে তার দাপটের। সে পরিবর্তনের অশুভ প্রতিনিধি। রিডলার কিংবা পেংগুইন কোনো না কোনো সময় অপরাধীর কোর্টে দাঁড়ায়, কিন্তু একমাত্র জোকারেরই আছে সেই কোর্টকে জ্বালিয়ে দেয়ার ক্ষমতা।

হিরোর কথা চিন্তা না করে ভিলেনদের তৈরি করা হয় খুব কম সময়ই। বরং হিরোকে চ্যালেঞ্জ এবং কাউন্টার করার জন্য তৈরি করা হয় ভিলেনদের। সেদিক থেকে চিন্তা করলে জোকার সর্বসেরা ভিলেন কারণ সে তার কাউন্টারপার্ট ব্যাটম্যানের জন্য একদম পারফেক্ট। ব্যাটম্যানের যেমন কোনো অতিরিক্ত সুপারপাওয়ার নেই, সেই একইরকম ভাবে জোকারও আপাতদৃষ্টিতে খুব সাধারণ, যার কোনো সুপারপাওয়ার নেই। জোকারের উদ্দেশ্য ওয়ান্ডার ওম্যান কিংবা ফ্ল্যাশের সাথে লড়া না, তাই তাদের সুপারপাওয়ারের কাছে জোকার টিকবে কি টিকবে না সেই প্রশ্ন গুরুত্বহীন। জোকারের একমাত্র উদ্দেশ্যই হচ্ছে ব্যাটম্যানকে চ্যালেঞ্জ ছোঁড়া, তার সৃষ্টি হয়েছে এই লক্ষ্যে।

ব্যাটম্যান এবং জোকারের সম্পর্ক এই ডিসি ইউনিভার্স এমনকি বলা যায় পুরো কমিক বুক কালচারের মধ্যেই সবচেয়ে ইউনিক। তাদের মধ্যকার অন্তর্দ্বন্দ মূলত ফিলোসফিকাল। জোকার চায় ব্যাটম্যান তার এথিকস, তার রুল থেকে সরে এসে তার মত, একজন খুনীতে পরিণত হোক। ব্যাটম্যানও জানে জোকার তার মিরর রিফ্লেকশন। তাদের দুজনের মধ্যের তফাত শুধু একটা সূক্ষ্ম লাইনের। তার ভয় যদি সে লাইন ক্রস করে, তাহলে সে পরিণত হবে জোকার যা চায় তাতে।

ব্যাটম্যান অবশ্যই সেরা সুপারহিরো হতে পারতো না যদি জোকারের অস্তিত্ব না থাকতো। যার উপস্থিতি এবং অস্তিত্ত্ব ব্যাটম্যানকে করেছে আরো পরিণত, বাধ্য করেছে তার স্কিলগুলোকে এমন এক পর্যায়ে নিয়ে যেতে যাতে করে সে জোকারকে হারাতে পারে। ব্যাটম্যান বিখ্যাত তার মোরালের জন্য। কিন্তু জোকারের অনুপস্থিতিতে এই মোরাল কতটুকু ফল বহন করে? জোকার ছিল বলেই আমরা ব্যাটম্যানকে দেখি ক্রমাগত তার এথিকস আর ইমপালসের সাথে যুদ্ধ করতে। ব্যাটম্যান কখনোই খুন করে না সেটা যেই হোক না কেন, যত বড় অপরাধীই হোক না কেন। যেহেতু সে খুন করে না, তাই জোকারকে মেরে ফেলার যথেষ্ট কারণ এবং একই সাথে সুযোগ থাকার পরও সে সেই কাজটা করে না। করতে চায় না। তার এই আচরণ, তাকে আমাদের চোখে পরিণত করে আরো ভাল একজন মানুষ হিসেবে।

“গ্রেট ভিলেন একটা চরিত্র হিসেবেও গ্রেট হয়”

গ্রেট ভিলেন একটা চরিত্র হিসেবেও গ্রেট হয়। আর চরিত্রের জটিলতাই তাকে গ্রেট হতে আরো সাহায্য করে। সেদিক থেকে চিন্তা করলে জোকারের চরিত্রের মত কমপ্লেক্স চরিত্র কমিক বুকের ইতিহাসে খুব কমই আছে। সে একই সাথে একজন গ্রেট ভিলেন এবং গ্রেট ক্যারেক্টার।
জোকার একমাত্র মেজর ভিলেন যার অরিজিন ইতিহাস আমরা এখনো জানি না। কখনোই জোকারের অতীত ইতিহাস উন্মোচন করা হয় নি। এমনকি সে যখন তার জোকার হওয়ার কথা বলে, তখন একেকবার একেক কথা বলে তার ভিক্টিমদের। সম্প্রতি অ্যালান মুর ‘কিলিং জোক’ এডিশনে জোকারের একটা অরিজিন ইতিহাস দিলেও সেটা নিয়েও আছে বিতর্ক। জোকারের সত্যিকারের অরিজিন আমাদের কাছে একটা রহস্য হিসেবেই রয়ে গেছে। আমরা জানি না সে কোথা থেকে এসেছে, তার আসল নাম কি, কেন সে এই পথ বেছে নিয়েছে। আমরা প্রায় সব ভিলেনদের অতীত ইতিহাস জানি, কিন্তু জোকার তার ব্যতিক্রম এবং তার এই রহস্যময়তা তাকে আমাদের কাছে করে তুলেছে আরো আকর্ষণীয়। এরকম রহস্যময় এবং একই সাথে প্রগাঢ় চরিত্র কমিক বুক ইতিহাসে বেশ বিরল।

জোকার কোনো একঘেয়ে চরিত্র না। একটা চরিত্রর কয়েক দশক ধরে প্রাসঙ্গিক থাকার পেছনে যুগের সাথে তাল মেলানোর একটা ক্ষমতা থাকতে হয় এবং জোকারের মধ্যে সেটা পুরোদমে আছে। আমরা যদি ওর ভিলেনিয়াস কাজকর্মের দিকে তাকাই, তাহলে দেখবো সে গথাম সিটিতে যত রকমের আঘাত হানা সম্ভব তা হেনেছে। গথামের পানির রিজার্ভার এ বিষ দেয়া থেকে শুরু করে বিষাক্ত গ্যাস ছেড়ে দেয়া, নিউক্লিয়ার বম্ব কিংবা টাইমড স্নাইপার রাইফেল প্ল্যান্ট করা এবং পুরো ব্যাট পরিবারকে আটক করে ফেলা- জোকারের অসাধ্য নেই কিছুই। সময়ভেদে সে তার স্ট্র্যাটেজি পরিবর্তন করেছে, একদম নতুন করে তার প্ল্যানের ছক কেটেছে। যার দরুন জোকারের পরবর্তী ধাপ কি হবে তা কখনোই প্রেডিক্ট করা যায় না। তার সুপারপাওয়ার বা অত্যাধুনিক গ্যাজেট না থাকাতে তাকে আন্ডারস্টেমিট হয়তো অনেকেই করে এবং এটাই তাকে দেয় একটা বিশাল সুবিধা যা খুশি তা করার। সে ভয়ংকর। একজন সাধারণ মানুষের পক্ষে যা যা ইভিল কাজ করা সম্ভব, তা সে করতে সক্ষম এবং সে করে। ভাগ্যক্রমে গথাম সিটিতে একজন ব্যক্তিই জোকারের ক্ষমতার ব্যাপারে সন্দেহ করে না। আর সেটা হলো ব্যাটমান। ব্যাটম্যান আছে বলেই আছে জোকারের অস্তিত্ত্ব।

অন্যান্য ভিলেনরা কিভাবে তাদের অপোজিট হিরোকে থ্রেট দেয়? থানোস, অ্যাপোক্যালিপ্স, ব্ল্যাক অ্যাডাম সবাই যা করে তা হল ফোর্স ব্যবহার করা। একইরকমভাবে প্রতিবার তারা এই শক্তি প্রয়োগের মাধ্যমেই সুপারহিরোদের হারাতে চায় এবং এটাই এই ভিলেনদের আমাদের কাছে করে তোলে একঘেয়ে। অথচ জোকার তা না। তার নতুন নতুন কৌশল আমাদের এই চরিত্রটার প্রতি এক ধরনের সম্মান, ভয় আর আকর্ষণ তৈরি করে। একজন গ্রেট ভিলেনের কাজ হচ্ছে একটা গ্রেট স্টোরি তৈরি করা, এবং জোকার সেটা করতে পুরোপুরি সক্ষম। যুগের সাথে তাল মেলানোর জন্য জোকারের চরিত্র, কৌশলে ক্রমাগত এসেছে পরিবর্তন। এটা তার চরিত্রে একধরনের সফিস্টেকেশন সৃষ্টি করে। যার দরুন, জোকার সেই ভিলেনগুলোর মধ্যে একজন যার জন্য আলাদা বই লেখা হয়েছে, ফিচার হয়েছে আরো শ’খানেক গল্পে।

জোকার সর্বকালের সবচেয়ে জনপ্রিয় কমিক বুক ভিলেন এবং তার জনপ্রিয়তা সঠিক কারণেই সমর্থনযোগ্য। কারণ পাঠকরা একজন স্মার্ট, ওয়েল রিটেন চরিত্রর প্রতি বেশি আকর্ষণ বোধ করে। এমন চরিত্র তাদের টানে যা তাদের ভাবাবে, এক ধরনের দোটানায় ফেলবে এবং জোকারের অস্তিত্ত্ব সেই নির্যাস দিতে পুরোপুরি সক্ষম। তাই জোকার সর্বকালের সেরা কমিকবুক ভিলেন- গ্রেটেস্ট ভিলেন অফ অলটাইম!

 

 

 

Tagged , ,